আজ ৬ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২০শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শা বি শিক্ষার্থী নিহত বুলবুলের এলাকায় শোকের মাতম

খাসখবর প্রতিবেদক

“আমার সোনাধনের আর নতুন পড়া হইল না” বলে বিলাপে কান্না করছে আর বার বার মূর্চা যাচ্ছে শাহাজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শাবি) দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে খুন হওয়া শিক্ষার্থী বুলবুল আহমেদের মা ইয়াসমিন বেগম। মঙ্গলবার (২৬ জুলাই) নিহত শিক্ষার্থীর গ্রামের বাড়ি নরসিংদীতে বইছে শোকের মাতম। মা ইয়াসমিন বেগমসহ পরিবারের অন‍্যান‍্য সদস‍্যদের কান্নায় চারপাশের বাতাস ভারী হয়ে উঠেছে।

সোমবার (২৫ জুলাই) সন্ধ্যায় শাহাজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে খুন হন বিশ্ববিদ্যালয়টির লোক প্রশাসন বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী নরসিংদীর ছেলে বুলবুল। রাতে সিলেটের জালালাবাদ থানায় অজ্ঞাত ৪ জনকে আসামি করে মামলা করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। বুলবুল নরসিংদী সদর উপজেলা চিনিশপুর এলাকার বাসিন্দা মৃত ওয়াহাব মিয়ার ছেলে।

এদিকে, ছিনতাইকারীরা এই হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে দাবী করছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। কিন্তু এটির পেছনে অন্য কারন আছে এবং এটি পরিকল্পিত হত্যাকান্ড বলে দাবী পরিবারের। সঠিক তদন্তের মাধ্যমে প্রকৃত খুনীদের চিহ্নিত করে বিচারের আওতায় আনার আবেদন নিহত বুলবুলের পরিবারের অন্যান্য সদস্য ও এলাকাবাসীর। এদিকে বুলবুল হত্যার প্রতিবাদে চিনিশপুরে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী।

জানাযায়, গত ৭ মাস আগে মারা যান বুলবুলের পিতা ওয়াহাব মিয়া। তারপর, একমাত্র বড় ভাইয়ের বেসরকারি চাকুরি ও বুলবুলের টিউশনির টাকায় চলত তাদের ৫ সদস্যের সংসার। সব স্বপ্নের উপসংহারে এই অবস্থায় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ এলাকাবাসীসহ পরিবারের সকলে।

মঙ্গলবার নরসিংদীর চিনিশপুর এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, ভাইকে হারানোর শোকে আহাজারি করছেন বড় বোন সোহাগী আক্তার। স্বপ্ন ছিলো, ভাই বুলবুল বিসিএস ক্যাডার হয়ে পরিবারের স্বপ্ন পূরণ করবে। হাল ধরবে ৭ মাস আগে মারা যাওয়া পিতা ওয়াহাব মিয়ার নিম্নবিত্ত সংসারের। কিন্তু দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে সেই স্বপ্ন মুছে গেলো নিমিষেই।

ছেলেকে নিয়ে বড় স্বপ্ন থাকলেও এখন ছেলের লাশের অপেক্ষায় থাকা মা ইয়াসমিন বেগম বিলাপ করছেন। সোমবারই মায়ের কাছে নতুন জুতা কেনার জন্য টাকা চেয়েছিলেন ছেলে বুলবুল। নিম্নবিত্ত মা ছেলের সেই জুতা কেনার শখও পূরণ করতে পারেননি বলে বারবার আফসোস করে একই প্রলাপ বকছেন তিনি।

মেধাবী শিক্ষার্থী বুলবুল ২০১৬ সালে নরসিংদী সদরের কালিকুমার উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি ও ২০১৮ সালে আবদুল কাদির মোল্লা সিটি কলেজ থেকে জিপিএ ৫ পেয়ে এইচএসসি পাঁস করেন। একই বছর ডিসেম্বরে ভর্তি হন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক প্রশাসন বিভাগে। সবকিছু ঠিক থাকলে আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যা নাগাদ নরসিংদীতে মরদেহ পৌছাবে এবং স্থানীয় কবরস্থানে সমাহিত করা হবে বুলবুল আহমেদকে ।

     এ ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ