আজ ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২২শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

জমি সংক্রান্ত বিরোধে সাবেক ইউপি সদস্যকে কুপিয়ে হত্যা

খাসখবর প্রতিবেদক

নরসিংদীতে জমি সংক্রান্ত বিরোধে সুজিত সূত্রধর (৫৬) নামে সাবেক এক ইউপি সদস্যকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। এসময় দুর্বৃত্তদের হাতে আহত হয়েছেন ওই ইউপি সদস্যের ছেলে ও অপর আরেক জন। বুধবার রাত ৮টার দিকে নরসিংদী শহরতলীর হাজীপুর কাঠ বাজারে নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে এই হত্যার ঘটনা ঘটে।
নিহত সুজিত সূত্রধর হাজীপুর ইউনিয়ন পরিষদের ২ নং ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য (মেম্বার) ও হাজীপুর কাঠ বাজারের একজন ব্যবসায়ী ছিলেন।

পুলিশ ও নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়,, অন্যান্য দিনের মতো হাজীপুর কাঠ বাজারে নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে বসা ছিলেন সুজিত সূত্রধর ও তার ছেলে সুজন সূত্রধরসহ অন্যান্যরা। এসময় কয়েকজন দুর্বৃত্ত ধারালো অস্ত্র নিয়ে অতর্কিতে সুজিত মেম্বারের উপর হামলা চালিয়ে উপযুপরি কোপাতে থাকে। এসময় তার ছেলে সুজন ও দ্বীন ইসলাম নামে আরও একজন এগিয়ে গেলে তাদের উপরও হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। তাদের ডাক-চিকিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে দুর্বৃত্তরা দ্রুত পালিয়ে যায় । পরে স্থানীয়রা তাদের ৩ জনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক সুজিত মেম্বারকে মৃত ঘোষণা করেন। আহত অপর দুইজন সুজন ও দ্বীন ইসলামকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

নিহত সুজিত সূত্রধরের ছেলে আহত সুজন সূত্রধর বলেন, তাদের সাথে জমিজমা নিয়ে একই এলাকার প্রভাবশালী প্রতিপক্ষের বিরোধ চলছিল। এ নিয়ে বাবা সুজিত সূত্রধর বাদী হয়ে মামলা করেন। এতে প্রতিপক্ষের লোকজন আমাদের ওপর ক্ষুব্ধ ছিল। এই জেরে চিহ্নিত সন্ত্রাসী মনিরসহ ১৫/২০ জনের একদল সন্ত্রাসী পূর্ব পরিকল্পিতভাবে অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে দোকানে এসে ধারালো অস্ত্র দিয়ে হামলা শেষে পালিয়ে যায়। হাসপাতালে নেওয়ার পর আমার বাবাকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

নরসিংদীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাহেব আলী পাঠান বলেন, আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। সুজিত সূত্রধরের সাথে একই এলাকার কতিপয় লোকজনের পূর্ব বিরোধ ছিল। তবে পূর্ব বিরোধ নিয়ে এই হত্যার ঘটনা ঘটেছে কি না, সে বিষয়ে আমরা এই মুহুর্তে নিশ্চিত নই। ঠিক কি কারণে কে বা কারা হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। আশা করছি দ্রুত সময়ের মধ্যে গত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটন ও হত্যার সাথে জড়িতদের আইনের আওতায় আনা সম্ভব হবে।

     এ ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ