আজ ৬ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২০শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

আজ বিজয়া দশমী; রাতে প্রতিমা বিসর্জন

মানাবেন্ড রায়

শারদীয় দুর্গোৎসবের আজ বিজয়া দশমী। পাঁচ দিনের শারদ উৎসবের শেষ দিন। বুধবার (৫ অক্টোবর) রাতে নরসিংদীতে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হবে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের এবারের প্রধান ধর্মীয় এ উৎসব। বিজয়া দশমী উপলক্ষে আজ সরকারি ছুটির দিন।

এবছর দেবী দুর্গা তার চার সন্তানকে সাথে নিয়ে পাচঁ দিনের জন্য গজে (হাতি) চড়ে কৈলাশ থেকে মর্তে বাবার বাড়ি আসে। আজ ভক্তদের কাঁদিয়ে নৌকায় করে পুনরায় ফিরবেন কৈলাশে। মা বিদায় নিয়ে চলে যাবে তার জন‍্যে ভক্তদের মন খারাপ।

নরসিংদী পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সুব্রত কুমার দাস জানায়, আজ বিজয় দশমী উপলক্ষে সন্ধ্যায নরসিংদী পৌর মেয়রের উদ্যোগে পৌরসভার প্রধান ফটকের সামনে এক মনোগ্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে। এই সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান সন্ধ্যা সাতটায় শুরু হয়ে চলবে মধ্যরাত পর্যন্ত। রাত ১০টায় থেকে বিভিন্ন পূজা মন্ডপের প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে দুর্গা মাকে বিদায় জানানো হবে।

বুধবার (৫ অক্টোবর) নরসিংদী শহরের বিভিন্ন পূজা মন্ডপ ঘুরে দেখা যায়, সকাল থেকেই ভক্তরা মায়ের বিসর্জন পূজা করছেন। মায়ের কাছে প্রার্থনা করছেন যেন মা তাদের আগামী দিনগুলোতে ভালো রাখেন। তাদের মঙ্গল করেন।

শহরের সেবাসংঘ দুর্গাবাড়ি পূজা মন্ডপে দশমী পূজা করতে আসা ভক্ত লিপি সরকার বলেন, মা এসেছেন, আবার চলে যাচ্ছেন। মায়ের চলে যাওয়ার এই ক্ষণে আমরা আমাদের সাধ্যানুযায়ী মাকে বিদায় জানাবো। মায়ের কাছে প্রার্থনা যেন সবাইকে ভালো রাখেন। দেশের ভালো করেন। আমাদের ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল করেন।

বাগ বিতান পূজা মন্ডপে উপস্থিত থাকা উত্তম মোদক বলেন, গত দুই বছর করোনার কারণে মায়ের পূজা ভালোভাবে হয়নি। দুই বছর পর এবার বড় আকারে পূজা হচ্ছে। আমরা অনেক আনন্দিত। সকাল থেকে মায়ের বিসর্জন পূজা করলাম। বিকেলে মা চলে যাচ্ছেন। মা চলে যাচ্ছেন বলে মন খারাপ হচ্ছে। তবে মা আগামী বছর পুনরায় ফিরে আসবেন এটাই কামনা করছি। মা যেন আমাদের মঙ্গল করেন।

দুর্গালয়ের সংঘে পূজা দিতে আসা ভক্ত কৃষ্ণা সাহা বলেন, মা এই ধরণী ছেড়ে চলে যাওয়ায় আমাদের সবার মধ্যে বইছে বেদনার সুর। কিন্তু এটাই নিয়ম মাকে চলে যেতে হবে। মা আবার আগামী শরতে আসবেন আমাদের জন্য মঙ্গলের বার্তা নিয়ে। মার কাছে আমাদের সবার একটাই চাওয়া ছিলো তিনি যেন এ ধরনীর বুকে যে শান্তির বার্তা দিয়েছেন তা যেন একটি বছর অক্ষুণ্ণ থাকে। আর মায়ের আশীর্বাদে আমরা যেন সবাই শান্তিতে বসবাস করতে পারি।

     এ ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ