আজ ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২২শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

নরসিংদীতে নিরাপদ খাদ্য ব্যবস্থাপনা নিশ্চিতকরণে সভা

খাসখবর প্রতিবেদক

নিরাপদ খাদ্য আইন-২০১৩ এর উদ্দেশ্য বাস্তবায়নকল্পে দেশব্যাপী নিরাপদ খাদ্য ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে নরসিংদীতে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৮সেপ্টেম্বর) নরসিংদী সদর উপজেলা পরিষদ
কার্যালয়ে এ অনুষ্ঠিত হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মেহেদী মোর্শেদ’র সভাপতিত্বে নরসিংদী সদর উপজেলা নিরাপদ খাদ্য ব্যবস্থাপনা কমিটির প্রথম এ সভায় স্বাগত বক্তব‍্য রাখেন, সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবু কাউছার সুমন।

নরসিংদী জেলা নিরাপদ খাদ্য কর্মকর্তা ফারজিয়া হক’র সঞ্চালনায় সভায় অন‍্যান‍্যের মধ‍্যে বক্তব‍্য রাখেন নরসিংদী আইডিয়াল হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক (ভারপ্রাপ্ত) মনজিল এ মিল্লাত,নরসিংদী প্রেসক্লাবের সিনিয়র সদস্য ; হলধর দাস, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ, সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা, নরসিংদীর চিয়াংরাই চাইনিজ রেস্টুরেন্ট’র মালিক মলয় কুমার বর্মন, হাজী ফুড প্রোডাক্টস’র মালিক মো. জাহির হোসেন, মাধবদী অরূপ সুইটমিট’র মালিক চন্দন কুমার সাহা প্রমুখ।

সভায় নিরাপদ খাদ্য কর্মকর্তা ফারজিয়া হক সদর উপজেলা নিরাপদ খাদ্য ব্যবস্থাপনা সমন্বয় কমিটির কর্মপরিধি তুলে ধরে তার বিস্তারিত ব্যাখ্যা দেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতকরণে উপজেলা পর্যায়ে খাদ্য উৎপাদন, আমদানি, প্রক্রিয়াকরণ, মজুদ, সরবরাহ, বিপণন ও বিক্রয় সংশ্লিষ্ট কার্যক্রম সমন্বয়ের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে।

ডা. আবু কাউছার সুমন বলেন, ‘খাদ্য প্রস্তুতে যে মেটারগুলো আমরা ব্যবহার করছি তা সঠিক মাত্রায় ব্যবহার করতে হবে। একটু বেশী ব্যবহার করলেই তা বিষে পরিণত হয়। যেমন চিনি। যে মাত্রায়ই চিনি ব্যবহার হউক না কেন ডায়াবেটিস রোগীর জন্য সেটা বিষ। অতিরিক্ত মাত্রায় যে কোন খাবারই হোক তা বিষ। এমনকি পানিও অতিরিক্ত মাত্রার খেলে তা বিষ।

বক্তাগণ সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দিয়ে বলেন, নরসিংদী জেলায় মাত্র ৪/৫ টি খাদ্য প্রস্তুতকারি প্রতিষ্ঠানের অনুমোদন আছে।

সভায় যেসকল বিষয়ের ওপর গুরুত্ব আরোপ করা হয় তার মধ্যে রয়েছে, গণসচেতনতার জন্য বিভিন্ন সেক্টরে বিশেষ করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের নিয়ে সেমিনার করা।

বেকারি মালিকদের নিয়ে সেমিনার করতে হবে। বেকারি কর্মচারীসহ খাদ্য প্রস্তুতকারীদের নিয়ে সেমিনার করতে হবে। হকারদের রাস্তাঘাটের খোলা খাবার বর্জন করতে গণসচেতনতা বাড়াতে হবে। বাড়িতে রান্না করা খাবার দুই ঘন্টা সময়ের বেশী সময় রেখে খাওয়া যাবে না। ডিপ ফ্রিজে খাবার সংরক্ষণ করতে হবে।

     এ ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ