আজ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কচুরিপানার দখলে নরসিংদীর মেঘনা

 

মকবুল হোসেন  ঃ

নরসিংদীর মেঘনা নদী পুরোটাই বর্তমানে কচুরিপানার দখলে। আর এই নদীর নরসিংদী অঞ্চল কচুরিপানার দখলে থাকায় নৌ চলাচলে বিঘ্নসহ প্রায়ই বিভিন্ন রকম অপ্রত্যাশিত ঘটনা ঘটছে। ফলে দূর্ভোগসহ ভোগান্তির শিকার হচ্ছে জেলার চরাঞ্চলবাসী, সেই সাথে জীবনযাত্রা অনেকটাই থমকে গেছে। এ অবস্থায় নরসিংদীর সাথে সদর ও রায়পুরা উপজেলার চরাঞ্চলসহ ব্রাহ্মনবাড়িয়ার নবীনগর ও বাঞ্চারামপুরের সাথে যোগাযোগ প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।

সরেজমিনে নরসিংদীর মেঘনা নদীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, নরসিংদী থানাঘাট হতে করিমপুর অন‍্যদিকে সুইচগেইট এলাকা পর্যন্ত কয়েক কিলোমিটার নদীপথ দখল করে নিয়েছে ভাসমান কচুরিপানা। এতে নরসিংদীর সাথে সদর উপজেলার ৪টি এবং রায়পুরার ৮টি চরাঞ্চলসহ ব্রাহ্মনবাড়িয়ার নবীনগর ও বাঞ্চারামপুর উপজেলার নৌ যোগাযোগ প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে গত মাসখানেক ধরে ভোগান্তিতে পড়েছে চরাঞ্চলবাসি। দুই-একটি ইঞ্জিনচালিত নৌযান মাঝে মধ‍্যে চলতে দেখা গেলেও সেগুলো কিছু দূর যেতে না যেতেই ঘন কচুরিপানা স্তুপে আটকা পড়তে দেখা যায়। শুধু তাই নয় অনেক কষ্টে এই ঘন কচুরিপানা স্তুপ ঠেলে নরসিংদী আসলেও ঘাটে ভীড়তে পারে না। কচুরিপানা আধিক‍্যের কাছে হার মেনে মাঝ নদীতে নোংঙ্গর ফেলতে দেখা যায়। সেখান থেকে দীর্ঘ বাঁশের মাঁচায় চড়ে পায়ে হেটে ঘাটে উঠতে হয় চরবাসীদের।

ভুক্তভোগি চরাঞ্চলবাসীরা জানান, চরবাসীদের নিত‍্যপ্রয়োজনীয় পন্য, ঔষধ, কাচাঁ মালের সিংহভাগই আসে নরসিংদী থেকে। নৌকা যোগে এসব আনতে মারাত্মক দুর্ভোগের স্বীকার পোহাতে হচ্ছে তাদের। নদীর বুক জুড়ে ভাসমান কচুরিপানা থাকায় লঞ্চ, স্টিমার, ইঞ্চিন চালিত নৌকা চলাচলে বিঘ্ন ঘটাসহ ঝামেলায় পড়তে হচ্ছে। ইতোমধ্যে নরসিংদী থেকে বিভিন্ন রুটে চলাচলকারি কয়েক’শ স্পিডবোর্ট বন্ধ হয়ে গেছে। এ অবস্থায় লোকজন নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে তাদের গন্তব্যে পৌছাতে পারছেনা। আগে যেসব স্থানে যেতে সময় লাগত এক ঘন্টা এখন সেখানে যেতে সময় লাগছে ৩ থেকে ৪ ঘন্টা তারও বেশী সময় ব‍্যয় হচ্ছে।

জানা যায়, ভাসমান এসব কচুরিপানার উৎস হচ্ছে এক শ্রেণীর প্রভাবশালী ব্যক্তিদের অবৈধ মাছের ঘের। আর ওইসব ঘের থেকে কচুরিপানা বাতাসে ভেসে এসে জমা হয় নরসিংদী নদীবন্দরসহ আশপাশের এলাকায়। প্রতি বছরই এ সময়ে নরসিংদীর মেঘনা নদী দখল করে নেয় ভাসমান এই কচুরিপানা। ফলে প্রতিবছরই এমন দুর্ভোগ পোহাতে হয় চরাঞ্চলসহ নৌপথে চলাচলকারি চরঞ্চলবাসীদের।

ইঞ্জিন চালিত নৌকার মাঝি কুডু মিয়া বলেন, “ইদানিং কচুরিপানার পরিমাণ এতোটাই বেড়েছে যে গত প্রায় একমাস ধরে আমরা নরসিংদী যেতে পারিনা অর্ধেক পথে যাত্রি নামিয়ে দিতে হয়। গত বেশ কিছুদিন ধরে বুদিয়ামারা মোড় এলাকা থেকে নাগরিয়াকান্দি ব্রিজ প্রায় এই দুই কিলোমিটার মধ‍্যে নৌকা চলাচল প্রায় বন্ধ রয়েছে। দুই একটা নৌকা কষ্টে পিষ্টে নরসিংদী পর্যন্ত গেলেও ঘাটে ভীড়া সম্ভব হয়না। মাঝ নদীতে যাত্রী নামাতে হয়।”

রমজান মিয়া নামে অপর এক মাঝি জানান, কচুরিপানার কারনে ঠিকভাবে নৌকা চালাতে পারেনা তারা । একটু পরপরই ভাসমান কচুরিপানার স্তুপে আটকে যায় নৌকা। এসময় লগি বৈঠা দিয়ে আটকে যাওয়া নৌকাকে মুক্ত করতে হয়। তাছাড়া যে গতিতে নৌকা চালায় তারা কচুরিপানার কারণে স্বাভাবিক সেই গতিতে চালাতে পারে না তারা। এতে গন্তব্যে পৌছতে নিদ্দিষ্ট সময়ের চেয়ে দুই তিন গুণ বেশী সময় লেগে যায়।

ইদন মিয়া নামে এক স্পিডবোর্ট চালক বলেন, “বর্তমানে নদীতে কচুরিপানা এতোটাই বেড়েছে যে বোর্ট চালানো বন্ধ হয়ে গেছে। আমরা দুইচার জন পেটের তাগিদে বোর্ট চালালেও করিমপুর থেকে যাত্রী উঠানামা করাই। নরসিংদী আর আমাদের যাওয়া সম্ভব হয়না।”

এ ব্যাপারে চরাঞ্চলের অনেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কচুরিপানার ছবি ও ভিডিও, পোস্ট করে বারবার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করলে কাজের কাজ কিছুই হয়নি।

এ ব্যাপারে ভুক্তভোগী বোর্ট ও নৌকার মাঝিরা প্রশাসনের দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

এ বিষয়ে নরসিংদী পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী বিজয় ইন্দ্র শংকর চক্রবর্তী সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, নদীতে অবৈধ ভাবে গড়ে তোলা মাছের ঘের থেকে এই কচুরিপানা ভেসে আসে। এর জন‍্য আমরা অবৈধ দখলদার ও অবৈধ মাছের ঘের উচ্ছেদ করার পদক্ষেপ নিব। এ ব‍্যাপারে জেলা প্রশাসক মহোদয় মোবাইল কোর্ট পরিচালন করবেন বলে বিষয়টি আমাদেরকে অবগত করেছেন।

মকবুল হোসেন মাধবদী নরসিংদী

     এ ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ